Main Menu

তার জন্য এক পংক্তি ভালবাসা

মনোয়ারা জামানঃ একজন মমতাময়ী ‘মা’

Monowara Zaman Pic 1 copy

রূপক আইচ, মাগুরা
জনাবা মনোয়ারা জামানকে আমি প্রথম দেখি সময়টা খুব সম্ভব ১৯৮৭ সাল। আমি তখন মাগুরা একাডেমী অর্থাৎ আজকের এজি একাডেমী স্কুলের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র। বছরের শুরুর দিকে স্কুলের স্বরস্বতি পূজা। আমরা পূজার আয়োজনে নানা কাজে ব্যাস্ত।  স্কুলের তৎকালীন সহকারি প্রধান শিক্ষক চিত্ত স্যারের  নির্দেশে এক বিকেলে সবাই মিলে দলে বলে গেলাম তৎকালীন ডাকসাইটে রাজনৈতিক নেতা এ্যাড. আছাদুজ্জামান সাহেবের ঢাকার রোডের বাড়িতে। উদ্দেশ্য তাকে স্কুলের পূজা দেখার  নিমন্ত্রনের চিঠি পৌছে দেয়া।  অত্যন্ত সাদামাটা বাড়িতে কড়া নাড়তেই দরজা খুলে দিলেন একজন সৌম্যকান্তি মাঝ বয়সী নারী। দেখেই মায়াময় একটি স্নিগ্ধতায় ভরে উঠলো মনটা। একঝাক কিশোরের উপস্থিতির কারণ জেনে তিনি সবাইকে হাসিমুখে বরণ করে নিলেন। পরে জানতে পারলাম ইনিই মনোয়ারা জামান। জননেতা আছাদুজ্জামান সাহেবের স্ত্রী।   আছাদুজ্জামান সাহেব তখন বাড়ি ছিলেন না। তার হয়ে আমাদের কথা শুনলেন ও আমাদের নিমন্ত্রন পৌছে দেয়ার আশ্বাস দিলেন।  বলে রাখি, পূজাটা হিন্দু সম্প্রদায়ের হলেও আমাদের দলে কিন্তু হিন্দু-মুসলিম সবাই মিলেই  থাকতাম।  যতদূর মনে পড়ে সে সময় আমাদের সাথে ছিলেন দোয়ারপাড়ের শৈলেন, পূর্বপাড়ার আরিফ আহমেদ প্রদীপসহ বেশ কয়েকজন।  এমন সময় আমাদের সবাইকে বাইরের ঘরে বসতে বলে তিনি ভেতরে চলে গেলেন। কিছুক্ষণ পর বাটি প্লেটে খিচুড়ি বেড়ে নিয়ে এলেন। বললেন- হাটাহাটি করে তোদের তো বেশ ক্ষিদে লেগে গেছে। এগুলো খেয়ে নে। তারপর একটু পানি খা।  তারপর অন্যত্র যা। আমরা তৃপ্তি নিয়ে খেলাম সেই অমৃতসম খিচুড়ি।   তখন থেকেই আমার মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছিল। আমাদের যে ক্ষিদে লেগেছে। তিনি কিকরে জানলেন? আমরা যে তৃষ্ণার্ত তিনি কিকরে বুঝলেন? পরে বুঝতে পারলাম। এ কারণেই তিনি মা। একজন মহিয়সি মা। একজন সাদা মনের মা।  ইনিই সেই মহিয়সি নারী মনোয়ারা জামান।  জনাব আছাদুজ্জামানের রাজনীতিতে আকাশচুম্বি সাফল্যের  পেছনে যিনি সবচেয়ে বেশী ভূমিকা রেখেছেন। ভূমিকা রেখেছেন ছেলেদের, বিশেষ করে আজকের সফল জননেতা এ্যাড. সাইফুজ্জামান শিখর এমপির মত সফল রাজনীতিকের মা হিসেবে সকলের মা হয়ে উঠায়।

আজ তিনি বয়সের কারণে অসুস্থ্যতায় ভুগছেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার আশু রোগমুক্তি কামনা করি। কামনা করি তিনি দ্রুত সুস্থ্য হয়ে আবার সবার মাঝে ফিরে আসুন। মমতাময়ী মায়ের আসনে নিজেকে ধরে রাখুন আরও অনেক দিন। অনেকগুলি বছর। আপনি ভাল থাকবেন। সবাইকে আপনার আচলের ছায়ায় ভাল রাখবেন। শুভ কামনা।

 

লেখক- সম্পাদক, মাগুরাবার্তাটোয়েন্টিফোর.কম






Comments are Closed